বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করতে কি কি লাগে


প্রিয় পাঠক আজকে আমাদের এই পোষ্টের আলোচনার মূল বিষয় হচ্ছে বাচ্চাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার উপায় এবং বাচ্চাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে কি কি লাগে। 

বাচ্চাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার পদ্ধতি সম্পর্কে জানার আগে চলুন আমরা এখনই জেনে নেই জন্ম নিবন্ধন করা কেন প্রয়োজন। 

বর্তমানে বাংলাদেশের জন্ম নিবন্ধন করা একজন প্রতিটি নাগরিকের একটি রাষ্ট্রকর্তৃক আইনগত স্বীকৃতি প্রদান করার মত একটি শিশু জন্মের পর তার অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন করা দরকার হয় ছোট বাচ্চাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। 




বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করা কেন প্রয়োজন


সাধারণত একটি শিশু জন্ম নেওয়ার ছয় মাসের ভিতরেই তার জন্ম নিবন্ধন করে ফেলা ভালো অথবা যে কোন সময় আপনি জন্ম নিবন্ধন পড়ে ফেলতে পারেন এটা প্রতিটি নাগরিকের একটি দায়িত্ব একটি শিশু বাচ্চা জন্ম হওয়ার পরপরই তার জন্ম নিবন্ধন করে ফেলা দরকার কেননা এই জন্ম নিবন্ধন করার ফলে সরকারি একটি ডাটাবেজ আছে সেই ডাটাবেজে নিবন্ধন করা হয় এবং 2006 সাল থেকে বাংলাদেশের জন্ম এবং মৃত্যু এটি হিসাব করা হয়ে থাকে তাই আমাদের প্রত্যেকের এবং প্রত্যেক শিশুদের বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করে ফেলা একান্ত প্রয়োজন। 

বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করতে কি কি লাগে

ছোট বাচ্চাদের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার উপায় আর প্রাপ্তবয়স্ক লোকের অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের করার উপায় একই রকম তবে একটি পার্থক্য রয়েছে সরকারি ফি এর পার্থক্য হল এই পার্থক্য। 


আপনি যদি আপনার নবজাতকের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে জানতে হবে এই জন্ম নিবন্ধন করতে কি কি কাগজপত্র লাগে এবং কি কি তথ্য আপনার প্রদান করা দরকার হয় তাহলে চলুন বিস্তারিত ভাবে জেনে নেয়া যাক। 


আপনি যদি আপনার পরিবারের সন্তানের জন্ম নিবন্ধন তৈরি করতে চান তাহলে নিচের নিয়ম অনুসরন করতে পারেন এই নিয়ম অনুসারে অনলাইনে আবেদন করার কাগজপত্র সহ সকল কাজ সম্পন্ন করা হয় প্রথমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সাথে আপনার যোগাযোগ করতে হবে এবং নির্ধারিত পরিমাণ একটা ফ্রি রয়েছে সেই ফি প্রদান করতে হবে এবং জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করে বাচ্চার জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে পারবেন। 


এই ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই পিতা-মাতার ওরজিনিয়াল যে জন্ম নিবন্ধন কার্ড রয়েছে সেই কাঠের সাথে তথ্য মিল রেখে তারপরে আপনার ফর্ম পূরণ করতে হবে কারণ পরবর্তীতে আপনি যদি কোনো ধরনের ভুল করেন তাহলে আবার ঝামেলা হতে পারে তাই সন্তানের টিকা কার্ড এর সামনে থাকবে এবং পিতা-মাতার জন্মদিনের সামনে থাকবে তারপরে আপনি ফরমটি পূরণ করবেন তাহলে আর কোন ধরনের ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। 

বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করার নিয়ম


জন্ম নিবন্ধন করতে কিছু তথ্যের প্রয়োজন হয় অর্থাৎ নিবন্ধনকারী শিশুর জন্মের পাঁচ বছরের মধ্যে তা নিবন্ধনকরণ যদি হয় তাহলে শিশু যে ক্লিনিক বা হাসপাতাল থেকে জন্মগ্রহণ করেছে তার ছাড়পত্র কোন হাসপাতালে জন্ম গ্রহণ না করলে তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে নিবন্ধন এর নির্দিষ্ট কোন তথ্য রয়েছে এনজিওকর্মীর প্রত্যয়নপত্র নিতে হবে এগুলো সম্ভব না হলে নিবন্ধকে জন্ম সংক্রান্ত দলিলের সত্যায়িত অনুলিপি লাগবে অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি লাগবে। 

যদি জন্ম নিবন্ধন কারী 5 বছরের বেশি বয়সের হয়


জন্ম নিবন্ধন করে যদি পাঁচ বছরের বেশি বয়সের হয় তাহলে বয়স প্রমাণের জন্য এমবিবিএস ডাক্তারের একটি প্রত্যয়ন লাগবে এবং জন্মস্থান এবং স্থায়ীভাবে বসবাসের স্থান প্রমাণের জন্য ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রত্যয়ন পত্র লাগবে উপরুক্ত কাগজপত্রগুলো পাওয়া না গেলে বয়স এবং জন্ম স্থান ভ্রমণের জন্য তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষক বা তাদের মনোনীত শিক্ষক-কর্মকর্তার প্রত্যয়ন পত্র লাগবে অথবা এবং জন্মস্থান প্রমাণের জন্য ইপিআই কার্ড বা পাসপোর্ট বা মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট এর চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান জন্ম সংক্রান্ত ছাড়পত্র উক্ত প্রতিষ্ঠানে থেকে যেকোনো তথ্যের সত্যায়িত ফটোকপি লাগবে এবং পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি লাগবে। 


বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন করতে কত টাকা খরচ হয়

বাংলাদেশ বাচ্চাদের জন্ম নিবন্ধন আবেদন শুরু হওয়ার 2010 সালের জুন মাসে শুরু হয় এবং এই আবেদন করার 45 দিনের মধ্যে বিনামূল্যে করা হয় শিশুদের শিশু জন্মের 45 দিন থেকে 5 বছরের মধ্যে 25 টাকা খরচ নেওয়া হয় এবং শিশু জন্মের পাঁচ বছর পর্যন্ত 50 টাকা খরচ নেওয়া হয় বিদেশ থেকে আবেদনের ক্ষেত্রে শিশু জন্মের 45 দিন বিনামূল্যে 45 দিন থেকে 5 বছরের মতো এক ডলার শিশু জন্মের পাঁচ বছর পর এক মার্কিন ডলার এর বেশি খরচ দেওয়া হয়। 



Leave a Comment

Thanks