১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর বক্তব্য প্রত্যেক বাঙালির কাছে একটি অতি স্মরণীয় একটি বক্তব্য প্রতিবছর ১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন এবং বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গুলোতে অনেক ধরনের অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয় এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে তার জীবনী সম্পর্কে এবং তার রাজনীতির সম্পর্কে বক্তব্য প্রদান করা হয়। 

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর বক্তব্য


আপনারা যারা ১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বক্তব্য দিতে চাইছেন তাদের জন্য আমাদের এই আর্টিকেলটি তৈরি করা হয়েছে চলুন তাহলে শুরু করা যাক। 


বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি অন্যতম দিন হল 15 আগস্ট আর এই দিনকে কেন্দ্র করে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সকল রাজনৈতিক অঙ্গসংগঠন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় আর সেই অনুষ্ঠানগুলোতে যারা বক্তব্য দিতে অবদান রাখেন তারা নমুনাস্বরুপ এই বক্তব্য দিতে পারবেন। 


জাতীয় শোক দিবস

15 ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর বক্তব্য জানার পূর্বে আপনাদের অবশ্যই জানা দরকার জাতীয় শোক দিবস পালন করা কেন হয় এই জাতীয় শোক দিবস পালন করার মূল কারণ হচ্ছে এই দিনে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে মেরে ফেলা হয়েছিল এবং তাদের এই নির্মম হত্যাকান্ড হয়েছিল তাদের সকলের কথা মনে করে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয় তাই এই দিনটিকে স্মরণীয় করে তোলার জন্য সারা দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুর শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর জন্য এই দিবস পালন করা হয়ে থাকে। 

তাই এই দিবসকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক অঙ্গসংগঠন 15 ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করে সেই সাথে তরুণ প্রজন্ম যাতে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে পারে এবং বাংলাদেশের প্রতি তাদের আগামী ভবিষ্যৎ সম্পর্কে বিশেষ অবদান রাখতে পারে সেই সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়ে থাকে। 

১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর নমুনা বক্তব্য

আপনারা যারা জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বক্তব্য পেশ করার জন্য অবদান রাখতে চান তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে তাই আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি নতুন কিছু নমুনা বক্তব্য আপনারা আমাদের এই সকল বক্তব্য গুলো হতে নমুনা সংগ্রহ করে আপনাদের মতো করে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানগুলোতে নিজেদের মূল্যবান বক্তব্য পেশ করতে পারেন এবং একটা ভালো ভূমিকা রাখতে পারেন। 


১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর বক্তব্য নমুনা ১

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি প্রিয় উপস্থিতি প্রথমেই আমি আমার বক্তব্য শুরু করার পূর্বেই স্মরণ করিয়ে নিচ্ছে বাংলাদেশের সকল বুদ্ধিজীবী এবং সকল ভাষা শহীদ হাজার 971 সালে শহীদ এবং বুদ্ধিজীবীদের। 

আমি আমার ভাষা প্রকাশ করার পূর্বে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি যে আপনারা আমাকে এই অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করার সুযোগ দান করেছেন এবং এই অনুষ্ঠানটি সফলতার সাথে সম্পন্ন করার জন্য আমাকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ সবাইকে। 


প্রিয় সুধী আমরা সকলেই জানি আজ ভয়াল 15 ই আগস্ট আজকের এই দিনে জাতির জনক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হাজার 975 সালের 15 ই আগস্ট নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল এবং সেই সাথে তার পুরো পরিবারের সদস্যদের কে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল যিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য তার জীবনকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন এবং তিনি এই সপরিবারে 15 ই আগস্ট নির্মমভাবে হত্যার শিকার হন আমরা ইতিহাসের পাতা ঘুরে দেখলে এই জঘন্যতম অপরাধ এবং হত্যাযঙ্গের ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবো বাংলাদেশের ইতিহাসে এই হত্যাযজ্ঞ একটি জঘন্যতম অপরাধ হিসেবে সাক্ষী-প্রমাণ হয়ে রয়েছে। 

তাই এই দীনকে স্মরণ করে রাখার জন্য জাতীয় শোক দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে এবং এই দিনে বাঙালি জাতি তাদের প্রাণপ্রিয় প্রানের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি আন্তরিক শ্রদ্ধা এবং অনুভূতি নিবেদন করার জন্য গভীর ভাবে শোকাহত এবং শোকাহত অশ্রু চোখে শ্রদ্ধা নিবেদন করে থাকে। 

বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের এবং প্রত্যেকের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী পড়া উচিত এবং সকল নেতাদেরকে নেতৃত্ব ঘটনা জেনে সঠিক নেতৃত্ব দেওয়া উচিত যেহেতু 15 ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে সেহেতু এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী এবং তার পরিবারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ভাষায় প্রকাশ করার মত নয় তাই আমি সকলের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং সেই সাথে আমার বক্তব্য শেষ করছি। 


১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এর বক্তব্য নমুনা ২

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম


আজকের এই অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য সকলের প্রতি শ্রদ্ধা এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি

সুধিবৃন্দ,

আপনারা জানেন আজ সেই দিন যেদিন বাংলাদেশের জনক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এবং তার সব পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল দুর্বৃত্তরা এবং সেইসাথে তার পরিবারের সকলকে হত্যা করা হয়েছিল বাঙালি জাতির কাছে এই দিনটি জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পরিচিত কারণ এই দিন ইতিহাসের সবচেয়ে জঘন্যতম একটি দিন। 

তাই আপনারা সকলে জানেন যে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করেছেন এবং সেইসাথে বাংলাদেশের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করে গিয়েছেন তবে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশকে উপস্থাপন করার জন্য তিনি তার জীবনকে বাজি রেখে গিয়েছেন। 


আপনারা জানেন বঙ্গবন্ধু ঐতিহাসিক 7 ই মার্চের ভাষণ প্রদান করেছিলেন এবং এই ভাষণ বাঙালিদেরকে যেভাবে বাংলাদেশ স্বাধীন করার জন্য অনুপ্রাণিত করেছিল এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করতে বিশেষ অবদান রেখেছিল তা আমরা সকলেই জানি কিন্তু এই বীরের সঠিক সম্মান না দিয়ে আমরা উল্টো নির্মমভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছিল বাংলার ইতিহাসে জঘন্যতম কাজের ভিতর এটি ছিল একটি অন্যতম। 

বাংলার ইতিহাসের এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে আমরা আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং সেইসাথে যারা দেশব্যাপী তার মৃত্যুর জন্য শোক প্রকাশ করছি তার স্বপ্ন কে সামনে রেখে বাংলাদেশকে আরো সামনে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা জাগে আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে অভিব্যক্ত দেখে আমি আমার সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শেষ করছি জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু। 

১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের কবিতা

জাতীয় শোক দিবসে আমরা পূর্বেই জেনেছি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এই অনুষ্ঠান উদযাপন করে থাকে আর এই অনুষ্ঠান পালন করার অন্যতম সাংস্কৃতিক অঙ্গনের একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে কবিতা পাঠ করা যে সকল শিক্ষার্থীরা জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কবিতা আবৃত্তি করতে চাইছেন তাদের জন্য এমন কিছু কবিতা নিয়ে এসেছি যা আপনাদেরকে ভাবিয়ে তুলবে। 

আমাদের বাংলাদেশের সকল ছোট-বড় নাগরিকের অন্যতম এবং প্রাণপ্রিয় নেতা হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করার জন্য তার জীবন বাজি রেখে গিয়েছেন এবং সেইসাথে তার লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশকে স্বাধীন এবং সার্বভৌম করা তাই শোক দিবস উপলক্ষে তার শ্রদ্ধা নিবেদনের পাশাপাশি কবিতা আবৃত্তি করার মাধ্যমে তার শোক দিবস পালন করা হয়ে থাকে। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে কত সালে হত্যা করা হয়

আমরা সকলেই জানি হাজার ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়েছিল। 

বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস কবে পালন করা হয়

বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়ে থাকে ১৫ ই আগস্ট। 


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন হত্যা করা হয়েছিল তখন তার পরিবারের সদস্যরা কোথায় উপস্থিত ছিলেন

আপনারা জেনে থাকবেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন হত্যা করা হয়েছিল তখন তার পরিবার তার নিজ গৃহে উপস্থিত ছিল। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কে এবং কোথায় হত্যা করা হয়েছিল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে দুর্বৃত্তরা তার নিজ গৃহে অর্থাৎ ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে বসে তাকে হত্যা করা হয়েছিল। 

১৫ ই আগস্ট কে কেন বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হাজার ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট দুর্বৃত্তরা তার নিজ গৃহে অর্থাৎ ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা করেছিল এই নির্মম হত্যাযজ্ঞ বাংলাদেশের ইতিহাসে আর কখনো হয়নি তাই এই নির্মম হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ রেখে সেই শোক পালন করার জন্য ১৫ আগস্ট কে বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। 

১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগিতা


বাঙালি জাতির ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মত নেতা এসেছে কেননা তার মতো এতো অবিসংবাদিত নেতা তৎকালীন সময় আর একজন ছিল না আর এ কারণেই প্রতি তার প্রতি খুবই ঈর্ষাকাতর হয় তৎকালীন পাকিস্তানের শাসন এরা তাকে অনেকবার গ্রেপ্তার করেছিল। 

তারা চাইতো যেকোন মূল্যেই হোক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে দমাতে হবে আর সেজন্য তারা বহুবার শেখ মুজিবুর রহমানকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছিল আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা ছাড়া আরও বিভিন্ন মামলায় তাকে বহু বছর কারাগারে রেখেছিল কিন্তু তার অত্যাধিক জনপ্রিয়তার কারণে এবং তার রাজনৈতিক স্বচ্ছতার কারণে বারবার তিনি সকল মিথ্যা মামলা এড়িয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন আর তৎকালীন সময়ের শাসকবর্গ তাকেও দমাতে পারেনি কিন্তু বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও তাদের সকল ষড়যন্ত্র আক্রোশ একটুও কমেনি বরং আরো বেড়ে যায় 


এ কারণেই তারা কিছু পথভ্রষ্ট সেনাবাহিনী গঠন করে এবং সেই বাহিনীর সদস্যদের কাজে লাগায় এবং দীর্ঘ পরিকল্পনার মাধ্যমে তাকে হাজার 975 সালের ১৫ আগস্ট তাকে সপরিবারে হত্যা করেন এবং তার এই হত্যাযজ্ঞের জন্য প্রতিবছর বাংলাদেশকে ১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয় এবং সেই শোক দিবস পালন উপলক্ষে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রচনা প্রতিযোগিতা করে থাকেন। 

প্রিয় পাঠক পরিশেষে আমরা বলতে পারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর শোক উপলক্ষে 15 আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয় এবং 15 আগস্ট শোক দিবস এর বক্তব্য এবং 15 আগস্ট শোক দিবস এর ভয়াবহতা নির্মমতা সম্পর্কে এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে আশাকরি আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা অনেক কিছু জানতে পারবেন। 

Leave a Comment

Thanks